টপিক: ধারাবাহিক : মিসওয়াকের মহাবিস্ময়কর রূপ (পর্ব-৩২)

১৩. রোগজীবাণু ধ্বংশে মিসওয়াক
অধিকাংশ রোগজীবাণু তিক্ত রসের কাছে কাবু বা পরাজিত। অনেক সময় কীট-পতঙ্গও তিতা বস্তুর কাছে ভীরে না। শুধু কি তাই মানুষ বা অন্য প্রাণীও তিতা জিনিস আহার থেকে বিরত থাকতে চায়। আমরা দেখতে পাই নিমের গাছ তিতা হওয়ার কারণে ঘুনে পোকা কাঠকে আক্রমণ করে না। তিক্ত জিনিস জীবাণুকে ধ্বংশ করে দেয়। অনেকেরই ধারণা তিক্ত স্বাদযুক্ত গাছের ছায়া সীমার মধ্যে জীবাণু থাকে না। জীবাণু ধ্বংশকারী হিসাবে নিম গাছের মিসওয়াক অতি পরিচিত। মিসওয়াকের রস উত্তম জীবাণু নাশক (Antiseptic) হিসাবে কাজ করে। মুখের ভিতর অনেক সময় বহুবিধ ধরনের রোগ-জীবাণু প্রবেশ করে কিন্তু মিসওয়াকের ফলে বিশেষত তিতা জাতীয় রসের প্রকোপে সেসব জীবাণু স্বমূলে ধ্বংশ হয়ে যায়।

আপনার আমন্ত্রণ রইল আমাদেরে এলাকায় মন্তব্য করা ও কিছু লিখার জন্য চলনবিল

Share

জবাব: ধারাবাহিক : মিসওয়াকের মহাবিস্ময়কর রূপ (পর্ব-৩২)

শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ

Share

জবাব: ধারাবাহিক : মিসওয়াকের মহাবিস্ময়কর রূপ (পর্ব-৩২)

অনেক ভালো শেয়ার ধন্যবাদ

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মোঃ বাবু (2012-April-27 18:24(pm))

বেশি করে মৃত্যুকে স্মরন করুন।
তারুণ্য বিডি ফোরাম। একটু গুরে আসুন ।