টপিক: মূর্তিপূজা সম্পর্কে কুরআনে বর্ণনা

হে লোক সকল! একটি উপমা বর্ণনা করা হলো, অতএব তোমরা তা মনোযোগ দিয়ে শোন; তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে যাদের পূজা কর, তারা কখনও একটি মাছি সৃষ্টি করতে পারবে না, যদিও তারা সকলে একত্রিত হয়। আর মাছি যদি তাদের কাছ থেকে কোন কিছু ছিনিয়ে নেয়, তবে তারা তার কাছ থেকে তা উদ্ধার করতে পারবে না, প্রার্থনাকারী ও যার কাছেপ্রার্থনা করা হয়, উভয়েই শক্তিহীন। [আল হাজ্জ্বঃ ৭৩]
তোমরা তো আল্লাহর পরিবর্তে কেবল প্রতিমারই পূজা করছ এবং মিথ্যা উদ্ভাবন করছ। তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে যাদের এবাদত করছ, তারা তোমাদের রিযিকের মালিক নয়। কাজেইআল্লাহর কাছে রিযিক তালাশকর, তাঁর এবাদত কর এবং তাঁর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর।তাঁরই কাছে তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে। [আল-আনকাবুতঃ ১৭]
বলুন, তোমরা আল্লাহ ব্যতীত যাদের পূজা কর, তাদের বিষয়ে ভেবে দেখেছ কি? দেখাও আমাকে তারা পৃথিবীতে কি সৃষ্টি করেছে? অথবা নভোমন্ডল সৃজনে তাদের কি কোন অংশ আছে? এর পূর্ববর্তী কোন কিতাব অথবা পরস্পরাগত কোনজ্ঞান আমার কাছে উপস্থিত কর, যদি তোমরা সত্যবাদী হও। [আল-আহকাফঃ ৪]
যখন তাদের কাছে রসূলগণ এসেছিলেন সম্মুখ দিক থেকেএবং পিছন দিক থেকে এ কথা বলতে যে, তোমরা আল্লাহ ব্যতীত কারও পূজা করো না। তারা বলেছিল, আমাদের পালনকর্তা ইচ্ছা করলে অবশ্যই ফেরেশতা প্রেরণ করতেন, অতএব, আমরা তোমাদেরআনীত বিষয় অমান্য করলাম।[হা-মীম সেজদাহ্ঃ ১৪]
অতএব, তারা যেসবের উপাসনা করে তুমি সে ব্যাপারে কোনরূপ ধোঁকায় পড়বে না।তাদের পূর্ববর্তী বাপ-দাদারা যেমন পূজা উপাসনা করত, এরাও তেমন করছে। আর নিশ্চয় আমি তাদেরকে আযাবের ভাগ কিছু মাত্রও কম না করেই পুরোপুরি দান করবো। [হুদঃ ১০৯]
নিঃসন্দেহে আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে লোক তাঁর সাথে শরীক করে। তিনি ক্ষমা করেন এর নিম্ন পর্যায়ের পাপ, যার জন্য তিনি ইচ্ছা করেন। আর যে লোক অংশীদার সাব্যস্ত করল আল্লাহর সাথে, সে যেন অপবাদ আরোপ করল। [আন-নিসাঃ ৪৮]
তারা বললঃ তুমি কি আমাদের কাছে এজন্যে এসেছ যে আমরা এক আল্লাহর এবাদত করি এবং আমাদের বাপ-দাদা যাদের পূজা করত, তাদেরকে ছেড়ে দেই? অতএব নিয়ে আস আমাদের কাছে যাদ্দ্বারা আমাদেরকে ভয় দেখাচ্ছ, যদি তুমি সত্যবাদী হও। [আল-আ'রাফঃ ৭০]
তারা আল্লাহ ব্যতীত অন্যান্য ইলাহ গ্রহণ করেছে, যাতে তারা তাদের জন্যে সাহায্যকারী হয়। কখনই নয়, তারা তাদের এবাদতঅস্বীকার করবে এবং তাদের বিপক্ষে চলে যাবে। [সূরা মরিয়মঃ ৮১-৮২]
বলুন, যখন আমার কাছে আমার পালনকর্তার পক্ষ থেকে স্পষ্ট প্রমাণাদি এসে গেছে, তখন আল্লাহ ব্যতীত তোমরা যার পূজা কর, তার এবাদত করতে আমাকে নিষেধ করা হয়েছে। আমাকে আদেশ করা হয়েছে বিশ্ব পালনকর্তার অনুগত থাকতে। [আল মু'মিনঃ ৬৬]
যে ব্যক্তি আল্লাহর পরিবর্তে এমন বস্তুর পূজাকরে, যে কেয়ামত পর্যন্তও তার ডাকে সাড়া দেবে না, তার চেয়ে অধিক পথভ্রষ্ট আর কে? তারা তো তাদের পুজাসম্পর্কেও বেখবর। [আল আহ্ক্বাফঃ ৫]
তাদের কতিপয় বিশিষ্ট ব্যক্তি একথা বলে প্রস্থান করে যে, তোমরা চলে যাও এবং তোমাদের উপাস্যদের পূজায় দৃঢ় থাক। নিশ্চয়ই এ বক্তব্য কোন বিশেষ উদ্দেশ্যে প্রণোদিত। [ছোয়াদঃ ৬]
আল্লাহ ব্যতীত? তারা বলবে, তারা আমাদের কাছ থেকে উধাও হয়ে গেছে; বরং আমরা তো ইতিপূর্বে কোন কিছুর পূজাই করতাম না। এমনি ভাবে আল্লাহ কাফেরদেরকে বিভ্রান্ত করেন। [আল মু'মিনঃ ৭৪]
তারা আল্লাহর পরিবর্তে এমন কিছুর পূজা করে, যার কোন সনদ নাযিল করা হয়নি এবং সে সম্পর্কে তাদের কোন জ্ঞান নেই। বস্তুতঃ জালেমদের কোন সাহায্যকারীনেই। [আল হাজ্জ্বঃ ৭১]
সে বললঃ তোমরা স্বহস্ত নির্মিত পাথরের পূজা কর কেন? [আস ছাফ্ফাতঃ ৯৫]
তাদেরকে বলা হবেঃ তারা কোথায়, তোমরা যাদের পূজা করতে। [আশ্-শূরাঃ ৯২]
ইবরাহীম বললেন, তোমরা কি তাদের সম্পর্কে ভেবে দেখেছ, যাদের পূজা করে আসছ। [আশ্-শূরাঃ ৭৫]
তারা বলল, আমরা প্রতিমার পূজা করি এবং সারাদিন এদেরকেই নিষ্ঠার সাথে আঁকড়ে থাকি। [আশ্-শূরাঃ ৭১]
তারা আল্লাহকে পরিত্যাগ করে শুধু নারীর আরাধনা করে এবং শুধু অবাধ্য শয়তানের পূজা করে। [আন-নিসাঃ ১১৭]
যেদিন তিনি তাদের সবাইকে একত্রিত করবেন এবং ফেরেশতাদেরকে বলবেন, এরা কি তোমাদেরই পূজা করত? [সাবাঃ ৪০]
পূর্বে তারা যাদের পূজা করত, তারা উধাও হয়ে যাবে এবং তারা বুঝে নেবে যে, তাদের কোন নিস্কৃতি নেই। [হা-মীম সেজদাহ্ঃ ৪৮]
যখন তিনি তাঁর পিতা ও তাঁরসম্প্রদায়কে বললেনঃ এই মূর্তিগুলো কী, যাদের তোমরা পূজারী হয়ে বসে আছ। [আল আম্বিয়াঃ ৫২]

ফোরামে আছি ।

জবাব: মূর্তিপূজা সম্পর্কে কুরআনে বর্ণনা

অসাধারণ শেয়ার !

রাখে আল্লাহ, মারে কে ?
সামাজিক দায়িত্বে অংশ নিতে যোগ দিন এখানে L-Star Foundation