Share

টপিক: অনন্তের পথে যাত্রাঃ 2-শিঙ্গায় ফুৎকার

অনন্তের পথে যাত্রাঃ
আপনার রাস্তা জান্নাতের দিকে অথবা জাহান্নামের দিকে।

((يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اتَّقُوا اللَّهَ وَلْتَنْظُرْ نَفْسٌ مَا قَدَّمَتْ لِغَدٍ))
“হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহকে ভয় কর। ভেবে দেখ তোমরা আগামী কালের জন্য কি প্রস্তুত করেছো।” (সূরা হাশরঃ ১৮)

শিঙ্গায় ফুৎকারঃ একটি বিশাল শিঙ্গা মুখে নিয়ে ইসরাফীল (আঃ) আদেশের অপেক্ষায় আছেন। আদেশ পেলেই তিনি তাতে ফুৎকার দিবেন। দু’বার শিঙ্গায় ফুৎকার দেয়া হবে: আতংকের ফুৎকারঃ (১ম বার শিঙ্গায় ফুৎকারের সাথে সাথে চতুর্দিকে মহা আতঙ্ক, আর্তনাদ এবং বিভিষিকা ছড়িয়ে পড়বে।) আল্লাহ্ বলেন, وَيَوْمَ يُنفَخُ فِي الصُّورِ فَفَزِعَ مَنْ فِي السَّمَاوَاتِ وَمَنْ فِي الْأَرْضِ إِلَّا مَنْ شَاءَ اللَّهُ “যেদিন শিঙ্গায় ফুৎকার দেয়া হবে তখন আল্লাহ্ যাকে চান সে ব্যতীত আকাশ ও পৃথিবীর সব কিছু ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে যাবে।” (সূরা নমলঃ ৮৭) সে সময় পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাবে। এর চল্লিশ দিন পর পুনরুত্থানের জন্য দ্বিতীয়বার শিঙ্গায় ফুৎকার দেয়া হবে: ثُمَّ نُفِخَ فِيهِ أُخْرَى فَإِذَا هُمْ قِيَامٌ يَنْظُرُونَ “অতঃপর পুনরায় তাতে ফুৎকার দেয়া হবে, ফলে সকলে দন্ডায়মান হয়ে দেখতে থাকবে।” (সূরা যুমারঃ ৬৮)



এগুলোর মধ্যে একটি কথাও যদি কারও উপকারে আসে বা হেদায়েতের কারণ হয় তবে প্রচেষ্টা সফল বলে মনে করব। আল্লাহ তায়ালা যেন আমাদের সবাইকে কবুল করেন। আমীন।